১০৫ বছর বয়সে পরীক্ষা দিয়ে স্টার মার্কস

বৃহস্পতিবার, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৫:৫২ অপরাহ্ণ

১০৫ বছর বয়সে পরীক্ষা দিয়ে স্টার মার্কস

 

মানসিক দৃঢ়তা ও ইচ্ছাশক্তির কাছে বয়সও পরাস্ত হতে বাধ্য। আবারও এটাই প্রমাণ করে দিলেন ভারতের কেরালা রাজ্যের ১০৫ বছর বয়সী ভাগীরথী আম্মা। যে বয়সে বার্ধক্যজনিত নানা অসুখে জর্জরিত হয়ে মৃত্যুর জন্য অপেক্ষা করার কথা সেই বয়সে তিনি নতুন করে পড়াশোনা শুরু করলেন। পাস করলেন রীতিমতো স্টার মার্কস পেয়ে।

এর মধ্যে গনিতে ফুল মার্কস পেয়েছেন কেরালার এই বৃদ্ধা। এই খবর ভাইরাল হওয়ার পর ভারতজুড়ে আলোচনায় উঠে আসেন তিনি। গত নভেম্বর মাসে চতুর্থ শ্রেণির পরীক্ষায় বসে এভাবেই নিজের প্রতিভার জানান দেন ভাগীরথী।

ছোটবেলা থেকেই পড়ার ইচ্ছা থাকলেও নানা প্রতিকূলতার কারণে সেটা হয়ে ওঠেনি। এবার সেই স্বপ্ন পূরণ করলেন সংগ্রামী এই বৃদ্ধা। বয়সের ভারে এখন তার হাত কাঁপে, তাই পরীক্ষায় উত্তরপত্র লিখতে তাকে সাহায্য করেছেন তার মেয়ে। খবর আজকালের।

ভারতীয় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে তাকে নিয়ে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, মোট ২৭৫ নম্বরের মধ্যে ২০৫ নম্বর (৭৪.৫ শতাংশ) পেয়েছেন ভাগীরথী আম্মা। গনিত, মালায়ালাম, ইংরাজি, সমাজ বিজ্ঞানে চমকে দেওয়ার মতো ফল করেছেন। মাতৃভাষা মালায়ালামে ৭৫–এর মধ্যে ৫০ নম্বর পেয়েছেন তিনি৷ ইংরেজিতে ৫০ নম্বরের মধ্যে ৩০ পেয়েছেন৷ এ কৃতিত্বে সবাই তাকে বাহাবা দিচ্ছে।

পড়াশোনার প্রতি সবসময়ই বিপুল আগ্রহ ছিল ভাগীরথী আম্মার। কিন্তু নয় বছর বয়সে তার মা তাকে ছেড়ে চলে যান। সেই থেকেই পড়াশোনার স্বপ্ন ভেঙে যায় তার। ভাই-বোনদের বড় করার দায়িত্ব কাঁধে নিতে হয়।

বিয়ের পর নতুন করে পড়াশোনা শুরুর ইচ্ছা ছিল তার। কিন্তু মাত্র ৩০ বছর বয়সেই ছয় সন্তানকে রেখে স্বামী মারা যান। ফলে সন্তানদের নিয়ে শুরু হয় আরেক সংগ্রাম। শেষ পর্যন্ত যখন সুযোগ পেলেন, তখন আর পেছনে ফিরে তাকাননি।

কেরালার কোল্লামে নিজের বাড়িতে বসেই চতুর্থ শ্রেণির পরীক্ষা দেন ভাগীরথী আম্মা। কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়ে তাক লাগিয়ে দেন সবাইকে। কেরালার ইতিহাসে চতুর্থ শ্রেণীর পরীক্ষায় পাশ করা সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে রেকর্ড বইতে নাম তুলে নিয়েছেন তিনি

Development by: webnewsdesign.com