গাজীপুরে মিমি আপার পাঠশালাকে প্রাথমিক বিদ্যালয় করার আশ্বাস ইউএনওর

বুধবার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৮:৫৫ অপরাহ্ণ

গাজীপুরে মিমি আপার পাঠশালাকে প্রাথমিক বিদ্যালয় করার আশ্বাস ইউএনওর

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের সোহাদিয়া গ্রামে ‘মিমি আপার’ বিনা পয়সার সেই পাঠশালা দেখতে গেলেন ইউএনও।

বুধবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে মিমি আপার পাঠশালাখ্যাত ‘খুদে বর্ণমালা শিশু পাঠশালা’ দেখতে যান শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেখ শামছুল আরেফীন।

 

 

 

এর আগে গত ৩১ জানুয়ারি ‘বিনা পয়সায় পড়া যায় মিমি আপার পাঠশালায়’ শিরোনামে জাগো নিউজে সংবাদ প্রকাশ হয়। সংবাদটি নজরে এলে ওই পাঠশালা দেখতে যান ইউএনও।

বরমী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুল হক বাদল বলেন, দুপুর ২টার দিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ‘মিমি আপার পাঠশালা’ দেখতে আসেন। এ সময় স্থানীয়রা ওই এলাকায় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপনের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অনুরোধ করেন। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাদের আশ্বাস দেন।

 

 

 

 

শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেখ শামছুল আরেফীন বলেন, গণমাধ্যমে সংবাদ দেখে ‘মিমি আপার পাঠশালা’ দেখতে যাই। বর্তমানে খোলা আকাশের নিচে পাঠশালার কার্যক্রম চলছে। আপাতত কারও বাড়িতে বা ঘরে পাঠশালার কার্যক্রম চালানোর ব্যবস্থা নিতে ইউপি চেয়ারম্যানকে বলেছি। পাঠশালার কোমলমতি শিশুরা যাতে ঝরে না পড়ে সেজন্য সরকারি বই, বেঞ্চ ও বোর্ডসহ যাবতীয় সুযোগ-সুবিধা দেব আমরা।

তিনি বলেন, যদি কেউ জমি দিতে আগ্রহী হয় তাহলে ওই এলাকায় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপনের উদ্যোগ নেব আমরা। জমি দিতে আগ্রহী কাউকে না পাওয়া গেলে সরকারি ১নং খাস খতিয়ানের জমি নির্ধারণ করতে স্থানীয় ভূমি কর্মকর্তাকে বলা হয়েছে। পরবর্তীতে সরকারি উদ্যোগে ওই এলাকায় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করা হবে।

পাঠশালা পরিচালনার দায়িত্বে থাকা হাবিবুন নেসা মিমি বলেন, ইউএনও শেখ শামছুল আরেফীন সোহাদিয়া গ্রামে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপনের উদ্যোগ নেবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন। কেউ জমি দিতে রাজি হলে সেখানে বিদ্যালয়ের কার্যক্রম শুরু হবে। পরে সরকারি উদ্যোগে সেখানে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন হবে বলে জানিয়েছেন ইউএনও।

 

 

 

 

প্রসঙ্গত, নানা কারণে সোহাদিয়া গ্রামের একটি অংশের শিশুরা শিক্ষাবঞ্চিত হয়ে আসছিল দীর্ঘদিন। এসব শিশুর মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতে এগিয়ে এলেন এলাকার তরুণ-তরুণীরা। তারা নিজেদের উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন শিশুদের বর্ণমালা শেখার পাঠশালা। তাদের লক্ষ্য একটাই- গ্রামের শিশুদের আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা।

পাঠশালার উদ্যোক্তারা জানান, গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের সোহাদিয়া গ্রামে সহস্রাধিক পরিবারের বসবাস। গ্রামের পাশেই রয়েছে হরতকিটেক নামের আরেকটি গ্রাম। দুই গ্রামে নেই প্রাথমিক বিদ্যালয়। সচেতন অভিভাবকরা সন্তানদের দুই থেকে আড়াই কিলোমিটার দূরের বিদ্যালয়ে পাঠান।

Development by: webnewsdesign.com