এক বছরে বিজিএমই’র নিয়ন্ত্রণাধীন আওতাধীন ৬৩টি কারখানা বন্ধ

বুধবার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৮:১৯ অপরাহ্ণ

এক বছরে বিজিএমই’র নিয়ন্ত্রণাধীন আওতাধীন ৬৩টি কারখানা বন্ধ

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সী সংসদে জানিয়েছেন, গত বছরে (২০১৯ সাল) ৩২ হাজার ৫৮২ জন শ্রমিক বেকার হয়েছেন। তৈরি পোষাক শিল্প মালিকদের সংগঠন (বিজিএমই)’র নিয়ন্ত্রণাধীন আওতাধীন ৬৩টি কারখানা বন্ধ হওয়া ওই সকল শ্রমিক কাজ হারিয়েছেন।

আজ বুধবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এতথ্য জানান। স্পিকার ড. শিরিন শারমীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শুরু হওয়া অধিবেশনে এ সংক্রান্ত প্রশ্নটি উত্থাপন করেন সরকারী দলের সদস্য বেগম শামসুর নাহার।

লিখিত জবাবে মন্ত্রী আরো জানান, চাকুর হারানো শ্রমিকগণের নতুন কর্মসংস্থানের জন্য প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে। আর তৈরি পোশাক খাতে ভবিষ্যতে কাজ করবে এমন জনগোষ্ঠীকে প্রশিক্ষণ প্রদানের বিষয়টি পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

 

 

 

 

 

 

আওয়ামী লীগের সদস্য মমতা হেলা লাভলীর প্রশ্নের জবাবে টিপু মুন্সী জানান, তৈরি পোশাক কারখানায় নারী শ্রমিকের ২২ শতাংশ যৌন হয়রানীর শিকার কথাটি সঠিক নয়।

আওয়ামী লীগের আরেক সদস্য আনোয়ার হোসেন খানের প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী জানান, বর্তমানে বাংলাদেশে পেঁয়াজের বার্ষিক চাহিদা প্রায় ২৪ লাখ মেট্টিন টন। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে পেঁয়াজের উৎপাদনের পরিমাণ ছিল ২৩ লাখ ৩০ হাজার মেট্টিন টন। এই পণ্যের উৎপাদন থেকে বিপণন পর্যন্ত সময়ে ৩০-৩৫ শতাংশ এবং আমদানিকৃত পেঁয়াজের মানের ভিন্নতা অনুসারে ১৫ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশ পর্যন্ত পঁচে নষ্ট হয়। খাওয়ার অনুপযোগী পেঁয়াজ বাদ দিলে নীট উৎপাদন ১৫ লাখ ১৪ হাজার মেট্টিন টন। ফলে ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ৮ থেকে ৯ লাখ মেট্টিন টন।

বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সৈয়দ আবু হোসেন বাবলার প্রশ্নের জবাবে টিপু মুন্সী জানান, বর্তমানে ৪৫টি দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তি রয়েছে। এছাড়া বর্তমানে আরো ৬টি আঞ্চলিক বাণিজ্য চুক্তির সদস্য। এছাড়া ৯টি দেশের সঙ্গে বাংলাদেশর বাণিজ্য ঘাটতি রয়েছে।

Development by: webnewsdesign.com